Home » কম্পিউটার কি ? – সংজ্ঞা,বৈশিষ্ট্য,প্রকারভেদ

কম্পিউটার কি ? – সংজ্ঞা,বৈশিষ্ট্য,প্রকারভেদ

সারাবিশ্বে বিজ্ঞানভিত্তিক যত বিস্ময়কর আবিষ্কার হয়েছে তাদের মধ্যে অন্যতম হলো কম্পিউটার এর আবিষ্কার। এটি একটি program দ্বারা নিয়ন্ত্রিত ইলেকট্রনিক যন্ত্র ( Electronic Device), যা ক্রমান্বয়ে এবং স্বয়ংক্রিয়ভাবে কাজ করতে সক্ষম।

এবং বাধাহীনভাবে গাণিতিক এবং লজিক্যাল অপারেশন (Mathematical and Logical operations) সম্পন্ন করতে ও সক্ষম।

Contents

কম্পিউটার কি? | কম্পিউটার বলতে কি বুঝায় | What is computer in bangla

Computer একটি উন্নত বৈদ্যুতিক ডিভাইস যা ব্যবহারকারীর কাছ থেকে input হিসাবে raw data নেয় এবং এই data গুলি আগে থেকে দেওয়া নির্দেশাবলী (যা program নামে পরিচিত) অনুসারে process করে এবং ফলাফল দেয় (output) দেয় বা ভবিষ্যতের ব্যবহারের জন্য output সংরক্ষণ করে।

কম্পিউটারের জনক কে ?

চার্লস ব্যাবেজ কে (Charles Babbage) কম্পিউটারের “গ্র্যান্ড ফাদার” বলা হয়। চার্লস ব্যাবেজ ডিজাইন করা প্রথম মেকানিকাল কম্পিউটারকে অ্যানালিটিক্যাল ইঞ্জিন (Analytical Engine) বলে।
এটি পাঞ্চ কার্ড আকারে পঠনযোগ্য মেমরি ব্যবহার করে।

কম্পিউটার শব্দের অর্থ

কম্পিউটার (computer) শব্দটি Latin শব্দ ‘কম্পুটারে’ (computare) থেকে উদ্ভূত, এর অর্থ গণনা বা program-যোগ্য গণনাকারী যন্ত্র। কম্পিউটার, program ছাড়া কিছুই করতে পারে না।

কম্পিউটার কাকে বলে? – সংজ্ঞা

কম্পিউটার হলো এমন একটি প্রোগ্রামযোগ্য বৈদ্যুতিন যন্ত্র, যা ডেটা গ্রহণ করতে, উচ্চ গতিতে নির্ধারিত গাণিতিক ও যৌক্তিক ক্রিয়াকলাপ সম্পাদন করতে এবং সেই ক্রিয়াকলাপগুলির ফলাফল প্রদর্শন করাতে সক্ষম। “

“ Computer is a programmable electronic device designed to accept data, perform instructed mathematical and logical operations at a high speed, and display the results.”

অক্সফোর্ড ডিকশনারি (Oxford Dictionary) অনুযায়ী,
“ কম্পিউটার হল হিসাব-নিকাশ করা অথবা অন্য কোন যন্ত্রকে নিয়ন্ত্রণ করার ইলেকট্রনিক যন্ত্র, যা তথ্য সংরক্ষণ, বিশ্লেষণ এবং উৎপাদন করে ” 

(“ Electronic device for storing,  analyzing and producing  information for making calculations or controlling machines ”)

কম্পিউটার এর পুরো নাম কি (Full form of computer)

Full form of computer in Bengali

C = Commonly
O = Operating
M = Machine
P = Particularly
U = Used for
T = Technical
E = Educational
R = Research.

অর্থাৎ “Commonly Operating Machine Particularly Used for Technical Educational Research.”

কম্পিউটার আবিষ্কারের ইতিহাস (History of computer in Bengali )

কম্পিউটার এর ইতিহাস আলোচনা করার সময় আধুনিক কম্পিউটারের জনক হিসাবে পরিচিত বৃটিশ নাগরিক র্চালস ব্যাবেজের নাম সবার প্রথম স্মরন করা হয়ে থাকে। তিনিই প্রথম ১৮২৩ সালে সরকারের অনুদানে একটি গণনা যন্ত্র তৈরি করেন।

  • প্রথম প্রজন্ম: ভ্যাকুয়াম টিউব (১৯৪০-১৯৫৬) (Vacuum tube based)
  • দ্বিতীয় প্রজন্ম: ট্রানজিস্টর (১৯৫৬-১৯৬৩) (Transistor based)
  • তৃতীয় প্রজন্ম: সার্কিট ( ১৯৬৪-১৯৭১) (Integrated Circuit based)
  • চতুর্থ প্রজন্ম: মাইক্রোপ্রসেসর (১৯৭১- বর্তমান) (VLSI microprocessor based)
  • পঞ্চম প্রজন্ম: কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা (বর্তমান এবং ভবিষ্যৎ) (ULSI microprocessor based)

বিভিন্ন কম্পিউটার প্রজন্মের বৈশিষ্ট্য সমূহ

প্রথম প্রজন্ম (১৯৪০-১৯৫৬)

  • Vacuum tube technology এর অপর নির্ভর করে তৈরি।
  • অনির্ভরশীলতা।
  • আকারে খুব বড় এবং প্রচুর তাপ উৎপাদনকা।
  • শুধু machine language বুঝতে পারত তাই এই প্রজন্মের কম্পিউটারে যান্ত্রিক ভাষায় (machine language) প্রোগ্রাম লিখা হত।
  • memory খুব অল্প।
  • এই কম্পিউটারের যান্ত্রিক গোলযোগ, রক্ষণাবেক্ষণ ও পাওয়ার খরচ বেশি।

দ্বিতীয় প্রজন্ম ((১৯৫৬-১৯৬৩)

  • ট্রানজিস্টর দ্বারা তৈরি।
  • প্রথম প্রজন্মের তুলনায় অধিক নির্ভরশীল।
  • অধিক ধারণক্ষমত।
  • তথ্য স্থানান্তরের সুবিধা।
  • আকারে ছোট, গতি বেশি এবং তাপ উৎপাদন কম।
  • program লিখার জন্য অ্যাসেম্বলি ভাষা ব্যবহার হত।

তৃতীয় প্রজন্ম (১৯৬৪-১৯৭১)

  • বিভিন্ন প্রকার উন্নত মেমরি ব্যবস্থার উদ্ভাবন;
  • ব্যাপক Integrated Circuit বা IC এর ব্যবহার;
  • আকারে ছোট বলে বিদ্যুৎ খরচ কম
  • প্রোগ্রাম লেখার জন্য high-level programming language ব্যবহার হত।

চতুর্থ প্রজন্ম (১৯৭১- বর্তমান)

  • VLSI technology এর ব্যবহার।
  • Pipeline processing এর সুবিধা।
  • আকারে ছোট তাই স্থানান্তর করার সুবিধা।

পঞ্চম প্রজন্ম (ভবিষ্যৎ প্রজন্ম)

  • ULSI technology এর ব্যবহার।
  • Parallel Processing এর সুবিধা।
  • artificial intelligence বা কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা এর ব্যবহার।
  • ভিজুয়্যাল ইনপুট বা ছবি থেকে ডাটা গ্রহণ করতে পারবে।

কম্পিউটারের বৈশিষ্ট্য (Features of Computer)

  • Multitasking – Multitasking বা একই সময়ে এক সাথে অনেক গুলি কাজ করতে পাড়া, কম্পিউটার এর এমন একটি বৈশিষ্ট্য যা অন্যান্য সব যন্ত্র থেকে কম্পিউটার কে আলাদা করে।
  • Accurate এবং Speed – দ্রুত গতিতে এবং নিরভুল ভাবে কাজ করতে পাড়া হল কম্পিউটার এর প্রধান বৈশিষ্ট্য গুলির মধ্যে। এটি কম্পিউটার বাবহারের মূল কারন। তবে data inconsistency বা inaccuracy এর কারনের ভুল হতে পারে।
  • Efficient – মানুষ ক্লান্তি ও অবসাদের কারণে কোন কাজ দীর্ঘক্ষণ একটানা করতে পারে না। কিন্তু কম্পিউটার বিরক্তিহীন ও অবসাদহীনভাবে একই কাজ একটানা ঘন্টার পর ঘন্টা করে যেতে পারে
  • Reliability – Accurate এবং Speed এই দুটি গুন একই সঙ্গে থাকার কারনে কম্পিউটার অত্যন্ত নির্ভরশীল বা reliable
  • Non-intelligent – কম্পিউটারের নিজস্ব কোন বুদ্ধিমত্তা নেই। নিজ থেকে কম্পিউটার কোন কাজ করতে পারে না। কার্যসংক্রান্ত এর নিজস্ব কোন সিদ্ধান্ত নেই। ব্যবহারকারী যেভাবে ব্যবহার করবে কম্পিউটার সেই ভাবে কার্য সম্পাদন করবে।

কম্পিউটার বাবহারের সুবিধা | Advantages of Computers in Bangla

এখানে কম্পিউটার ব্যবহার এর সুবিধ গুলি আলোচনা করা হল

দ্রতগতি বা High Speed

  • Computer যে কোন কাজ অত্যন্ত দ্রতার সাথে করতে সক্ষম
  • এটি বিশাল পরিমান ডাটা নিয়ে ও অতি দ্রুদতার সাথে কাজ করতে সক্ষম।
  • computer এর speed unit গুলি হল microsecond, nanosecond, এবং pico-second.
  • মুহূর্তের মধ্যে লক্ষাধিক calculation করতে সক্ষম, যা কোন মানুদ দ্বারা করতে মাসের বেশি সময় লাগে।

নির্ভুলতা বা Accuracy

  • দ্রুততার সাথে সাথে কম্পিউটার নির্ভুল উত্তর দিতে ও সাক্ষম
  • কম্পিউটার দ্বারা করা calculation গুলি 100% নির্ভুল হয়ে থাকে ।

ক্লান্তিহীনতা বা Diligence

  • computer কাজ করার সময় কোন রকম আকঘেয়েমি বা ক্লান্তি র স্বিকার হয় না
  • প্রমাগত কাজ করলেও কম্পিউটার এর speed এবং accuracy এর কোন ঘাটতি হয়না যার ফলে সব কাজ error free হয়।
  • কম্পিউটার কে দিয়ে যে কোন সময় যে কোন কাজ করান যায়।

স্মৃতি ধারন ক্ষমতা বা Storage Capability

  • Memory বা স্মৃতি ধারন ক্ষমতা কম্পিউটার এর এক প্রধান বৈশিষ্ট্য।
  • computer এর স্মৃতি ধারন ক্ষমতা মানুষের তুলনায় বাশিজেম
  • কম্পিউটার যে কোন রকমের ডাটা সংরক্ষণ করতে সক্ষম। যেমন- images, videos, text, audio ইত্যাদি

ব্যবহারের বহুমুখিতা বা Versatility

  • computer একটি খুব versatile machine
  • কম্পিউটার কে বিভিন্ন ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হয়।
  • কোন এক মুহূর্তে কম্পিউটার কে দিয়ে complex scientific problem আবার সাই একই কম্পিউটার দিয়ে পরের মুহূর্তে গান সোনা যায়

নির্ভর যোগ্যতা বা Reliability

  • computer একটি খুব reliable machine
  • আধুনিক কম্পিউটার গুলি দীর্ঘ স্থায়ি
  • রক্ষণাবেক্ষণ এর সুবিধার কথা মাথায় রেখে কম্পিউটার তৈরি করা হয়।

স্বয়ংক্রিয়তা বা Automation

  • সব কম্পিউটার কে প্রোগ্রাম এর সাহায্যে একটি স্বয়ংক্রিয় যন্ত্রে পরিনত করা যায়।
  • কম্পিউটারকে কোন কাজের জন্য প্রয়োজনীয় তথ্য ও নির্দেশনা প্রদান করলে কম্পিউটার নিজে থেকেই সম্পূর্ণ তা স্বয়ংক্রিয়ভাবে সমাধা করতে পারে।
Features of Computer - characteristics of computer

কম্পিউটারের কাজ (Function of Computer)

যদিও আপাত দৃষ্টি তে মনে হতে পারে কম্পিউটার একটি sophisticated devices, যা জটিল থেকে জতিলতর কাজ খুব সহজে সম্পাদন করতে সক্ষম, কিন্তু আসলে যে কোন কম্পিউটার কেবল কিছু সীমিত সংখ্যক এবং সরল ধরনের কাজ করতে সক্ষম।

তবে এই সমস্ত সরল কাজ (simple tasks) গুলিকে কম্পিউটার খুব দ্রুত গতিতে করতে পারে। এই কারনে আপাত দৃষ্টি তে দেখে মনে হয় কম্পিউটার খুব জটিল কাজ খুব সহজে করতে পারে ।

তার সাথে রয়েছে প্রোগ্রামারদের complex algorithm যা জটিল কাজ গুলিকে খুব সাধারণ এবং সরল অংশে বিভক্ত করে, যা কম্পিউটারের দ্বারা সম্পাদন করা খুব সহজ হয়ে ওঠে ।

কম্পিউটারের কাজ কে আমরা চারটি ভাগে ভাগ করতে পারি , কাজগুলি হল —

Data input – প্রতিটি কম্পিউটার কে দিয়ে কোন কাজ করানর প্রথম পদক্ষেপ হল, সেটিতে data input করা।
আর এই কাজ টি হয়ে থাকে সাধারনত input device এর মাধ্যমে। এই Data entry, manual বা automatic অভয়ই হতে পারে।
Manual input সাধারনত hardware peripherals যেমন keyboard, mouse এর মাধ্যমে করা হয়ে থাকে। অনেক ক্ষেত্রে Input vocal dictation applications বা body gestures peripherals যেমন Kinect এবং biometric devices এর মাধ্যমেও করা হয়ে থাকে।

Data processing Data processing হল একটি কম্পিউটার এর মূল কাজ।
Processing হল একটি পদ্ধতি যার মাধ্যমে কম্পিউটার তার মধ্যে আসা raw data কে manipulate করে এবং একটি meaningful information এর আকার দেয়। প্রতিটি কম্পিউটারের মধ্যে আগে থেকে কিছু ইনস্ট্রাকশন (instruction) দেওয়া থাকে, এই ইন্সট্রাকশন গুলোর উপর ভিত্তি করে কম্পিউটার input আকারে পাওয়া data বা ইনফরমেশন গুলোকে প্রসেস (process)করে.

Information output – আউটপুট ( output ) হল সর্বশেষ ধাপ, input করা তথ্যগুলি process করার পর যে ফলাফল হয় সেটি কম্পিউটার আউটপুটের মাধ্যমে প্রকাশ করে.
Computer system এর সঙ্গে যে সব বিভিন্ন প্রকার এর আউটপুট ডিভাইস সংযুক্ত করা থাকে আউটপুট এর প্রকৃতি সেই ধরনের হয়। যেমন ধরা যাক যদি কোন কম্পিউটারের সঙ্গে output devise হিসাবে monitor সংযুক্ত করা থাকে তাহলে আউটপুট টি সেই মনিটরে ভেসে উঠবে, আবার যদি আউটপুট ডিভাইস হিসাবে কোন printer সংযুক্ত করা থাকে সে ক্ষেত্রে process করার ফলাফল print আকারে বেরিয়ে আসবে.

Data and information storage – কম্পিউটারের চতুর্থ এবং সমানভাবে গুরুত্বপূর্ণ কাজ হ’ল Data বা information store করা বা সংরক্ষণ করা। কম্পিউটার তথ্য কে internally এবং externally উভয় ভাবেই সঞ্চয় করতে পারে।

basic functions of computer

কম্পিউটারের প্রকারভেদ ( Computer Classification )

কম্পিউটারগুলি তাদের ডেটা প্রক্রিয়াকরণ সক্ষমতার ভিত্তিতে পৃথক হয়। এগুলি উদ্দেশ্য, ডেটা হ্যান্ডলিং এবং কার্যকারিতা অনুযায়ী শ্রেণিবদ্ধ করা হয়।

types of computer

কম্পিউটারের শ্রেণী বিভাগ সমূহ ||Classification of Computers

বিভিন্ন বিষয়ের ওপর ভিত্তি করে কম্পিউটারের শ্রেণীবিভাগ :-

  1. কাজের ধরন ও ব্যাবহারের প্রয়গক্ষেত্র অনুসারে কম্পিউটার এর শ্রেণী-বিভাগ
    • বিশেষ ব্যবহার এর কম্পিউটার (General Purpose Computer)
    • সাধারন ব্যাবহারের কম্পিউটার (Special Purpose Computer)
  2. গঠন ও কাজের প্রকৃতি অনুসারে কম্পিউটার এর শ্রেণী-বিভাগ
    • Analog Computer (এনালগ কম্পিউটার)
    • Digital Computer (ডিজিটাল কম্পিউটার)
    • Hybrid Computer (হাইব্রিড কম্পিউটার)
  3. আকার, আকৃতি, আয়তন ও কার্যকারিতা অনুসারে কম্পিউটার এর শ্রেণী-বিভাগ
    • ব্যক্তিগত কম্পিউটার: একটি ব্যক্তিগত কম্পিউটার একটি ছোট এবং কম দামের একটি কম্পিউটার “ব্যক্তিগত কম্পিউটার” বা “Personal Computer” শব্দটি Desktop Computer গুলিকে (ডেস্কটপ) বর্ণনা করতে ব্যবহৃত হয়।
    • ওয়ার্কস্টেশন কম্পিউটার: একটি নেটওয়ার্কে একটি টার্মিনাল বা ডেস্কটপ কম্পিউটার। এই প্রসঙ্গে, ওয়ার্কস্টেশনটি কোনও “সার্ভার” বা “মেইনফ্রেম” এর বিপরীতে ব্যবহারকারীর মেশিন (ক্লায়েন্ট মেশিন) এর জন্য একটি সাধারণ শব্দ ic
    • মিনিকম্পিউটার কম্পিউটার : একটি মিনিমিক কম্পিউটার খুব মিনি নয়। কমপক্ষে, আমাদের বেশিরভাগই মিনি সম্পর্কে ভাবেন না। আপনার ব্যক্তিগত কম্পিউটার এবং এর সম্পর্কিত পরিবার কতটা বড় তা আপনি জানেন।
    • মেনফ্রেম কম্পিউটার : এটি এমন এক ধরণের বৃহত কম্পিউটারকে বোঝায় যা একটি সম্পূর্ণ কর্পোরেশন চালায়।
    • সুপার কম্পিউটার: এটি পৃথিবীর বৃহত্তম, দ্রুত এবং সবচেয়ে ব্যয়বহুল কম্পিউটার।
    • মাইক্রো কম্পিউটার: আপনার ব্যক্তিগত কম্পিউটার একটি মাইক্রো কম্পিউটার।
      • পামটপ কম্পিউটার (Palmtop Computer)
      • ল্যাপটপ কম্পিউটার (Laptop Computer)
      • নোটবুক কম্পিউটার (Notebook Computer)
      • ডেক্সটপ কম্পিউটার (Desktop Computer)
কম্পিউটারের প্রকারভেদ

প্রাসঙ্গিক

কম্পিউটারের উপাদান সমূহ

কম্পিউটারের উপাদানগুলিকে প্রধানত চারটি ভাগে ভাগ করা যায়। যথা-

  1. হার্ডওয়্যার
    • ইনপুট
    • প্রসেসিং ইউনিট
    • আউটপুট
  2. সফট্ওয়্যার
    • সিস্টেম সফট্‌ওয়্যার
    • অ্যাপ্লিকেশন সফট্‌ওয়্যার
  3. হিউম্যানওয়্যার
  4. ডেটা

Computer Hardware

কম্পিউটার হার্ডওয়্যার একটি যৌথিক শব্দ (collective term) এর সাহায্যে কম্পিউটার এর মধ্যে থাকা সমস্ত physical components কে বোঝায়। কম্পিউটার হার্ডওয়্যার কে অভ্যন্তরীণ বা বাহ্যিক উপাদানগুলির হিসাবে শ্রেণীবদ্ধ করা যেতে পারে।

অভ্যন্তরীণ উপাদানগুলি হল

Motherboard, Central Processing Unit (CPU), Random Access Memory (RAM), Hard Drive, BUS, Optical Drive, Heat Sink, Power Supply, Transistors, Chips, Graphics processing unit (GPU), Network interface card (NIC) এবং Universal Serial Bus (USB) ports ইত্যাদি। কম্পিউটার এর এই উপাদানগুলি সম্মিলিতভাবে প্রোগ্রাম বা অপারেটিং সিস্টেম (OS) থেকে আসা data কে process এবং store করতে সাহায্য করে।

অপর দিকে বাহ্যিক উপাদান, যাকে peripheral components ও বলা হয়, যা সাধারনত কম্পিউটারের ইনপুট বা আউটপুট ক্রিয়াকলাপ নিয়ন্ত্রণ করে।

বিভিন্ন ধরনের Input device গুলি হল mouse, keyboard, microphone, camera, touch-pad, stylus, joystick, scanner, USB flash drive  ইত্যাদি।

এবং Output device গুলি হল Monitors, printers, speakers, headphones ইত্যাদি

কম্পিউটার এর বিভিন্ন অংশের নাম (Parts of Computer)

কম্পিউটার এর বিভিন্ন অংশের নাম (Parts of Computer)

কম্পিউটারে কি কি থাকে ?

এগুলিকে এককথায় কম্পিউটার হার্ডওয়ার বলে।

  • মনিটর: একটি কম্পিউটার মনিটর একটি output devise যা চিত্রাঙ্কিত আকারে তথ্য প্রদর্শন করে।
  •  মাদারবোর্ড : যে কোনও কম্পিউটারের প্রধান সার্কিট বোর্ডকে মাদারবোর্ড বলে। এটি একটি পাতলা প্লেটের মতো দেখায়। তবে কম্পিউটারের সমস্ত অংশের সাথে সরাসরি সংযুক্ত থাকে।
  • সি পিই উ / প্রসেসর : CPU কে Computer এর ব্রেন বলা হয়, এটি কম্পিউটারের প্রধান অংশ, যা প্রসেসর বা microprocessor নামেও পরিচিত, সিপিইউ-তে সমস্ত কম্পিউটার ইনস্টল করা হয়, এটি কম্পিউটারের সমস্ত ফাংশনকে নিয়ন্ত্রণ করে।
  • র‌্যাম : আমরা র‌্যামকে random access memory (RAM) হিসাবেও জানি। কম্পিউটার যখনই কিছু গণনা করে, এটি অস্থায়ীভাবে ফলাফলটিকে সংরক্ষণ করে। যদি কম্পিউটারটি বন্ধ হয়ে যায় তবে এই ডেটাটিও হারিয়ে যায়। র‌্যাম মেগাবাইট (MB) বা গিগা বাইট (GB) দ্বারা পরিমাপ করা হয়।
  • পাওয়ার সাপ্লাই: পাওয়ার সাপ্লাই ইউনিটের কাজটি হ’ল মূল বিদ্যুৎ সরবরাহ থেকে বিদ্যুৎ নেওয়া এবং প্রয়োজনীয়তা অনুসারে অন্যান্য উপাদানগুলিতে সরবরাহ করা
  • হার্ডডিস্ক : Hard disk হল computer এর storage আঁশ যেখানে software, documents এবং অন্যান্য file গুলি সংরক্ষণ করা হয়। এটিতে, data দীর্ঘ সময়ের জন্য store থাকে। storage device আবার কয়েক প্রকার হতে পারে। ( storage device এর প্রকার )
  •  কিবোর্ড : একটি কম্পিউটার কীবোর্ড একটি কম্পিউটারের সাথে ব্যবহৃত প্রাথমিক ইনপুট ডিভাইসগুলির মধ্যে একটি। বৈদ্যুতিক টাইপরাইটারের মত, একটি keyboard এমন বোতামগুলির সমন্বয়ে গঠিত যা অক্ষর, সংখ্যা এবং চিহ্ন তৈরি করে এবং অন্যান্য কার্য সম্পাদন করে(keyboard shortcut এর মাধ্যমে)।
  • মাউস : মাউস, কখনও কখনও পয়েন্টার নামে পরিচিত, একটি হস্তচালিত ইনপুট ডিভাইস যা কম্পিউটারের স্ক্রিনে অবজেক্টগুলি ম্যানিপুলেট করতে ব্যবহৃত হয়
  •  সিডি ড্রাইভ : কমপ্যাক্ট ডিস্ক রিড-ওনল মেমোরির জন্য শর্ট, একটি সিডি-রোম একটি অপটিকাল ডিস্ক যা অডিও বা সফ্টওয়্যার ডেটা থাকে যার মেমরি কেবল পঠনযোগ্য। একটি সিডি-রোম ড্রাইভ বা অপটিকাল ড্রাইভ সেগুলি পড়ার জন্য ব্যবহৃত ডিভাইস। 

কম্পিউটার সফটওয়্যার কি ? || software definition in bengali

কম্পিউটার সফটওয়্যার একটি কম্পিউটার প্রসেসরে প্রোগ্রামিং কোড । কোডটি মেশিন-স্তরের কোড বা কোনও Operating system এর জন্য লিখিত কোড হতে পারে।

Application software এমন একটি সফ্টওয়্যার যার দ্বারা অ্যাপ্লিকেশন নামে পরিচিত অন্যান্য সফ্টওয়্যার তৈরি করার জন্য অন্যান্য প্রোগ্রামারদের জন্য platform সরবরাহ করা হয়।

এটি হার্ডওয়্যার নির্মাতাদের জন্য একটি নির্ভরযোগ্য স্তরও সরবরাহ করে।

একটি কম্পিউটারের physical উপাদানগুলি হল হার্ডওয়্যার; হার্ডওয়্যারটিতে চলছে ডিজিটাল প্রোগ্রামগুলি হ’ল সফটওয়্যার। সফ্টওয়্যারটি হার্ডওয়ারের তুলনায় আপডেট করা বা প্রতিস্থাপন করা সহজ ।

কম্পিউটার এর প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ কি ও কত প্রকার হতে পারে।

সফটওয়্যার কত প্রকার ? কি কি ?

দুটি ধরণের সফ্টওয়্যার রয়েছে –

System Software – সিস্টেম সফ্টওয়্যার

সিস্টেম সফ্টওয়্যার কম্পিউটারের প্রক্রিয়াকরণ ক্ষমতা পরিচালনা, নিয়ন্ত্রণ এবং প্রসারণের জন্য ডিজাইন করা প্রোগ্রামগুলির একটি সংগ্রহ। সিস্টেম সফ্টওয়্যার সাধারণত কম্পিউটার নির্মাতারা প্রস্তুত করেন।

এই সফ্টওয়্যার গুলিতে নিম্ন-স্তরের ভাষাগুলিতে লিখিত প্রোগ্রামগুলি থাকে, যা খুব প্রাথমিক স্তরে হার্ডওয়্যারের সাথে যোগাযোগ করে। সিস্টেম সফ্টওয়্যার হার্ডওয়্যার এবং শেষ ব্যবহারকারীদের মধ্যে ইন্টারফেস হিসাবে কাজ করে।

Application Software- অ্যাপ্লিকেশন সফ্টওয়্যার

অ্যাপ্লিকেশন সফ্টওয়্যার একটি নির্দিষ্ট পরিবেশের একটি নির্দিষ্ট চাহিদা পূরণের জন্য ডিজাইন করা হয়েছে। 

অ্যাপ্লিকেশন সফ্টওয়্যারটিতে একটি একক প্রোগ্রাম থাকতে পারে যেমন মাইক্রোসফ্টের নোটপ্যাড একটি সাধারণ পাঠ্য লেখার এবং সম্পাদনার জন্য। এটিতে প্রোগ্রামগুলির একটি সংগ্রহও থাকতে পারে, প্রায়শই বলা হয় একটি সফ্টওয়্যার প্যাকেজ, যা কোনও কাজ সম্পাদনের জন্য একসাথে কাজ করে, যেমন স্প্রেডশিট প্যাকেজ।

হার্ডওয়্যার এবং সফটওয়্যার-এর মধ্যে পার্থক্য কী? (Computer Hardware vs Software)

Computer Hardware হল computer এর যান্ত্রিক আঁশ বা physical device যা দিয়ে computer টি গঠিত।

আপর দিকে software টি আপনার computer এর hard drive এ install করা code এর সংগ্রহ।

উদাহরণস্বরূপ, আপনি এই পাঠ্যটি পড়তে যে কম্পিউটারের monitorটি ব্যবহার করছেন এবং এই web-page টি navigate করতে আপনি যে mouse টি ব্যবহার করছেন তা হ’ল Computer Hardware । যে internet browser টি আপনাকে এই page টি দেখার অনুমতি দেয় এবং ব্রাউজারটি যে operating system টি চলছে সেগুলি software হিসাবে বিবেচিত হয়।

Personal Computer Architecture Layers